দৃষ্টি আকর্ষন
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মতিতে আগামী ১লা ফেব্রুয়ারী ২০২০ইংরেজি রোজ শনিবার সংগঠনের সভাপতি শিরিন আহমেদ এমপির নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সংগঠনের পক্ষ থেকে সকল নেতা-কর্মিকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে এ জাতীয় সম্মেলন সফল করার জন্য আহবান জানানো হয়েছে........
শিরোনাম :
এডিশনাল আইজিপি (অবঃ) বজলুল করিম বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের সন্মেলন প্রস্তুতি কমিটির প্রচার ও প্রকাশনা উপ কমিটির আহবায়ক হলেন বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের জাতীয় সন্মেলনের প্রস্তুতি কমিটির ১ম সভা কাওরান বাজারের বঙ্গবন্ধু কর্ণারে অনুষ্ঠিত মেসেঞ্জারে নববর্ষের ‘শুভেচ্ছা’ বা সারপ্রাইজ মেসেজ থেকে সাবধান! ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনে উত্তরে নৌকা পেলেন আতিক : আর দক্ষিণের নৌকা তাপসের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সামরিক সচিব মেজর জেনারেল মিয়া মোহাম্মদ জয়নুল আবেদীন আর নেই আন্দোলনের নামে নৈরাজ্য, বিশৃঙ্খলা সৃ‌ষ্টির চেষ্টা কর‌লে সমু‌চিত জবাব দেয়া হবে : বলেছেন, ওবায়দুল কাদের মৎস্যজীবী লীগের সভাপতি হয়েছেন মো. সাইদুর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন শেখ আজগর লস্কর হলি আর্টিজান মামলার রায়ে সন্তুষ্ট বিএনপি : বলেছেন, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সহিংসতার শিকার নারীদের জন্য প্রতি ওয়ার্ডে অভিযোগ বক্স দেয়া হয়েছে : বলেছেন, মেয়র আতিকুল ইসলাম এখনো আন্দোলনের উপযুক্ত সময় হয়নি : বলেছেন, মওদুদ আহমদ
আমি হারতে ঘৃণা করি : বলেছেন, বিরাট কোহলি

আমি হারতে ঘৃণা করি : বলেছেন, বিরাট কোহলি

স্পোর্টস ডেস্ক, ২৯ নভেম্বর ২০১৯ইং (দেশপ্রেম রিপোর্ট): কয়েক মাস আগে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে নিউজিল্যান্ডের কাছে পরাজয়ের যন্ত্রণা এখনও টাটকা ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলির মনে। এবার সেই যন্ত্রণার কথাই ফুটে উঠেছে তাঁর গলায়।

সেই ম্যাচে কিউই পেসারদের দাপটে ভারতের টপ অর্ডার দ্রুত ফিরে গিয়েছিল। মহেন্দ্র সিংহ ধোনি ও রবীন্দ্র জাদেজার জুটি জাগিয়েছিল আশার আলো। কিন্তু ধোনি রান আউট হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তা হতাশায় পরিণত হয়।

সেমিফাইনালে সেই পরাজয় নিয়ে বিরাট কোহলি বলেছেন, ‘আমি কি ব্যর্থতায় প্রভাবিত হই? হ্যাঁ, হই তো। প্রত্যেকেই হয়। দিনের শেষে আমি জানতাম যে, দলের প্রয়োজন ছিল আমাকে। আমার হৃদয়ে এই বিশ্বাস জোরালো ছিল যে, অপরাজিত থেকে ভারতকে সেমিফাইনালে জিতিয়ে ফিরব। হতে পারে আমার ইগো এমন ভেবেছিল। এমন পূর্বাভাস কি করা যায়? এটা করার পক্ষে তীব্র ইচ্ছা বা অনুভূতিই শুধু থাকতে পারে।’

যে ভাবে কোহালি ক্রিজে গিয়েছিলেন, যে ভাবে ব্যাট করছিলেন, তাতে ধরা পড়ছিল ম্যাচে কতটা তীব্র ভাবে জড়িয়ে ছিলেন তিনি। ফিল্ডিংয়ের সময়ও মনে হচ্ছিল মাঠে নিজেকে উজাড় করে দিচ্ছেন তিনি। কোহালি সাফ বলেছেন, ‘আমি হারতে ঘৃণা করি। মাঠে নেমে এটা বলতে চাই না যে, এটা করতে পারতাম। যখন আমি মাঠে নামি তখন এটা বিশাল সম্মান বলে মনে করি। যখন আমি বেরিয়ে যাই, তখন কোনও এনার্জিই পাই না। আমরা এমন একটা উদাহরণ রেখে যেতে চাই যেন ভবিষ্যতের ক্রিকেটাররা আমাদের মতো খেলতে চাওয়ার কথা বলে।’

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© Copyright 2012 Daily Deshprem Design & Developed By Mahmud IT